সেই ১৯৫ পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধী [পর্ব ১]

সচলায়তনে প্রকাশিত

স্বাধীনতার পর ১৯৫ জন পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধীর ছাড়া পাবার বিষয়টি ইদানিং সবত্রই আলোচিত হচ্ছে। একাত্তরের যুদ্ধে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের বিচার প্রক্রিয়া শুরু হবার পর এমন প্রশ্নও তোলা হচ্ছে যে, ভারতের নিকট আটক থাকা ঐ ১৯৫ জন পাকিস্তানীই ছিল প্রকৃত অপরাধী, এবং তখন পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধীদের ছেড়ে দিয়ে এখন স্থানীয় যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা সম্ভব নয়।

মুলত: কেন এবং কিভাবে সেই ১৯৫ জন পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধী ছাড়া পেয়েছিল তা উদ্ঘাটনই এই লেখার উদ্দেশ্য। বিভিন্ন আঞ্চলিক ও আর্ন্তজাতিক পত্রিকায় ডিসেম্বর ১৯৭১ থেকে এপ্রিল ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত সময়ে প্রকাশিত এ সংক্রান্ত খবর এবং স্বাক্ষরিত বিভিন্ন চুক্তিপত্র উদ্ধৃত করে মূল ঘটনাপ্রবাহটি তুলে ধরা হয়েছে। লেখাটি তথ্যভিত্তক রাখার জন্য মন্তব্য বা সম্পাদকীয় কলাম যথাসম্ভব পরিহার করে মুলত: খবরাখবরই উদ্ধৃত করা হলো। উল্লিখিত অধিকাংশ খবরই যদিও দেশি-বিদেশি একাধিক পত্রিকাতে ছাপা হয়েছিল, তবু ঘটনার ধারাবাহিকতা বজায় রাখার জন্য এখানে নিউ ইয়র্ক টাইমস-এর খবরই বেশি উদ্ধৃত করা হয়েছে।

যুদ্ধবন্দী স্থানান্তর
একাত্তরে পাকিস্তানের পরাজয় যখন নিশ্চিত হওয়া শুরু হয়, তখন থেকেই মুক্তিবাহিনী ও গনহত্যার শিকার সাধারন বাঙালীর ক্ষোভ থেকে রক্ষা পাওয়ার বিষয়টি পাকিস্তানী সৈন্যদের কাছে মুখ্য হয়ে ওঠে। যুদ্ধে ভারতের সক্রিয় অংশগ্রহন পরাজিত পাকিস্তানীদের জন্য শাপে বর হয়ে দেখা দেয়। ভারত যেহেতু আর্ন্তজাতিক জেনেভা কনভেনশনের সদস্য এবং যুদ্ধে প্রত্যক্ষ অংশগ্রহনকারী, সেহেতু পাকিস্তানী যুদ্ধবন্দী রক্ষা করার ব্যপারে ভারত আর্ন্তজাতিক ভাবে দায়বদ্ধ।
১৯৭১ সালের ১৫ই ডিসেম্বর লে. জেনারেল এএকে নিয়াজীর যুদ্ধবিরতীর প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে ভারতীয় সেনাবাহিনীর চিফ অফ স্টাফ জামসেদজি মানেকশ পরের দিনই নিয়াজীকে আত্নসমর্পণ করার যে চরমপত্র দেন, তাতে পাকিস্তানের সামরিক ও আধা-সামরিক বাহিনীর নিরাপত্তা নিশ্চিতের প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়। [১] এরপর ১৬ই ডিসেম্বর নিয়াজী যৌথবাহিনীর নিকট যে আত্নসমর্পন পত্র স্বাক্ষর করেন, তাতে উল্লেখ করা হয় “আত্নসমর্পনকারী সৈন্যদের জেনেভা কনভেনশন অনুযায়ী মর্যাদা ও সম্মান প্রদান করা হবে এবং আত্নসমর্পনকারী সকল পাকিস্তানী সামরিক ও আধা-সামরিক বাহিনীর সদস্যদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে”। [২]

খুলনায় প্রায় আট হাজার পাকিস্তানী সৈন্যের আত্নসমর্পণ তদারককারী ভারতীয় মেজর জেনারেল দিলবর সিং এক সাক্ষাৎকারে জানান যে যুদ্ধ পরবর্তী সপ্তাহগুলিতে ভারতীয় সৈন্য প্রত্যাহার এবং পাকিস্তানী যুদ্ধবন্দীদের ভারতের বিভিন্ন শিবিরে স্থানান্তর করাই ছিল তাদের অন্যতম দ্বায়িত্ব। তিনি আরো বলেন, “যেহেতু স্থানীয় সহযোগীরা (যেমন- রাজাকার) জেনেভা কনভেনশনের অন্তর্ভুক্ত নয়, এরা বাংলাদেশ সরকারের দ্বায়িত্বের মধ্যে পড়বে”। [৩]

যুদ্ধাপরাধের বিচার
বাংলাদেশ সরকারের তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একেএম কামরুজ্জামান ২৪শে ডিসেম্বর ১৯৭১ ঘোষণা করেন যে বাংলাদেশ ইতমধ্যে ৩০ জন শীর্ষস্থানীয় পাকিস্তানী সরকারী কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেছে এবং গনহত্যায় সহযোগিতার জন্য অচিরেই তাদের বিচার হবে। এর দু’দিন পরই ২৬শে ডিসেম্বরে এক সংবাদ সম্মেলনে একাত্তরের গনহত্যার শিকার সাতজন বাংলাদেশী কর্মকর্তার পরিবার ভারতের কাছে আবেদন জানান যেন ভারত দোষী পাকিস্তানীদের বিচারে বাংলাদেশকে সহায়তা করে। জবাবে ভারতীয় কুটনীতিক দূর্গা প্রসাদ ধর কিছুটা অনিচ্ছার সাথে শুধু জানান যে “ভারত যুদ্ধবন্দীদের বিষয়ে আর্ন্তজাতিক আইনে তার কী কর্তব্য তা পরীক্ষা করে দেখছে”। [৪]

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান কারামুক্তির পর দেশে ফিরেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়া শুরু করেন। ২৯শে মার্চ ১৯৭২ নিয়াজী এবং রাও ফরমান আলী-সহ ১১০০ পাকিস্তানী যুদ্ধাপরাধীর বিচারের সরকারী পরিকল্পনা ঘোষনা করা হয়। [৫] সরকার দুইস্তর বিশিষ্ট একটি বিচার পরিকল্পনা পেশ করে যেখানে কিছু শীর্ষস্থানীয় যুদ্ধাপরাধীর বিচারে দেশি-বিদেশি জুরি নিয়োগ; এবং অন্যদের জন্য শুধু দেশীয় জুরি নিয়োগের সীদ্ধান্ত হয়। [৬]

আর্ন্তজাতিক চাপ এড়াতে এসময় ভারত শুধু সেইসব পাকিস্তানী সৈন্যদের হস্তান্তর করতে রাজী হয় যাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকার প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত অভিযোগের ভিত্তিতে ‘প্রাইমা ফেসিই কেস’ (prima facie case) হাজির করতে পারবে। [৭] এরপর বাংলাদেশ সরকারের সংগৃহীত প্রমানের পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৭২ সালের ১৪ই জুন ভারত সরকার নিয়াজীসহ প্রাথমিকভাবে ১৫০ জন যুদ্ধবন্দীকে বিচারের জন্য বাংলাদেশের নিকট হস্তান্তরে সম্মত হয়। [৮]

ইন্দীরা গান্ধী ও জুলফিকার আলী ভুট্টর সিমলা চুক্তি স্বাক্ষরের মাত্র দুই সপ্তাহ আগে ১৯শে জুন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান পুনরায় এই বিচারের কথা স্মরন করিয়ে দেন। ভারত-পাকিস্তান উভয় দেশের ওয়েব সাইটে সিমলার সম্পূর্ণ চুক্তিপত্রটি সংরক্ষিত থাকলেও, এই সিমলা চুক্তিতেই যুদ্ধাপরাধীর বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়েছে বলে অনেকেই ভুল করে থাকেন। [৯] মুলত কাশ্মীর সীমান্তসহ দ্বিপাক্ষিক কিছু বিষয়েই ২রা জুলাই ১৯৭২ সালে ভারত-পাকিস্তান সিমলা চুক্তি স্বাক্ষর করে, যেখানে যুদ্ধাপরাধী বা বাংলাদেশ সম্পর্কে কোন বিষয়ই উল্লেখ করা হয়নি। [১০]

পাকিস্তানে বাঙালী নির্যাতন ও জিম্মি
যুদ্ধের সময় যে ৪ লক্ষ বাঙালী পাকিস্তানে আটকা পড়ে, পাকিস্তান সরকার তাদেরকে জিম্মি করে বাংলাদেশের বিচার বাধাগ্রস্থ করার চেষ্টা করে। প্রায় ১৬ হাজার বাঙালী সরকারী কর্মকর্তা যারা যুদ্ধের সময় পাকিস্তানে আটকা পড়ে এবং পরবর্তীতে চাকুরিচ্যুত হয়, তাদের পাকিস্তান ত্যাগের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। অনেক কর্মকর্তাকে ক্যাম্পে আটক করে রাখার কারনে বাংলাদেশ তখন আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদও জানায়। [১১]

এসময় পাকিস্তান সরকার পলায়নপর বাঙালীদের ধরিয়ে দেবার জন্য মাথাপিছু এক হাজার রুপি পুরষ্কার ঘোষনা করে। [১২] এধরনের ঘোষনার কারনে অনেক পাকিস্তানীই তখন পালানোর মিথ্যে অভিযোগ তুলে প্রতিবেশী বাঙালীদের ধরিয়ে দেয়া শুরু করে। আন্তর্জাতিক রেসকিউ কমিটি (আইসিআর)-এর তৎকালীন একটি প্রতিবেদনে পাকিস্তানে জিম্মি বাঙালীদের দুর্বিষহ অবস্থা ফুটে উঠে। রিপোর্টে বলা হয়, শুধু “পাকিস্তান ত্যাগ করতে পারে এই অভিযোগে বাঙালীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে” এবং “হাজার হাজার বাঙালী বিনা বিচারে জেলে আটক আছে”।

আন্তর্জাতিক ভাবে প্রচারিত এই রিপোর্টে আরো বলা হয়-

“হয়রানি এবং বৈষম্যমূলক আচরন নিত্যদিনের বিষয়ে পরিণত হয়েছে। বাঙালীদের উপরের শ্রেণীতে এর প্রভাব সবচেয়ে বেশি, যাদের এখন “নিগার” বা নিচুজাত হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে। কিন্তু যারা ইতমধ্যেই বৈষম্যের চুড়ান্ত সীমায় অবস্থার করছে, ঐ সব সাধারনের উপরে যতটুকু অতিরিক্ত বৈষম্য করা হচ্ছে, তার প্রভাবও অনেক বেশি”। [১৩]

নিগ্রহ আর নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচার জন্য শত শত বাঙালী তখন রিক্ত হস্তে আফগানিস্তানের দুর্গম উপজাতি-শাসিত অঞ্চল দিয়ে পালিয়ে বাচার চেষ্টা করে। [১৪]পাকিস্তানে এই বাঙালী নির্যাতন যে শুধু যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের পথ রুদ্ধ করার জন্যই, জুলফিকার আলি ভুট্ট পরবর্তীতে তা অংকোচেই প্রকাশ করেছেন।

[পর্ব ২]

তথ্যসূত্র:
১. “Text of Indian Message”, দি নিউ ইয়র্ক টাইমস, ১৬/১২/১৯৭১, পৃ- ১৬
২. Reuters, (১৯৭১), “The Surrender Document” দি নিউ ইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত, ১৭/১২/১৯৭১, পৃ- ১
৩. “Bengalis Hunt Down Biharis, Who Aided Foe”, দি নিউ ইয়র্ক টাইমস, ২২/১২/১৯৭১, পৃ- ১৪
৪. “India Weighs Bengali Plea To Try Pakistani Officials”, দি নিউ ইয়র্ক টাইমস, ২৭/১২/১৯৭১, পৃ- ১
৫. “Bangladesh Will Try 1,100 Pakistanis”, দি নিউ ইয়র্ক টাইমস, ৩০/০৩/১৯৭২, পৃ- ৩
৬. প্রাগুক্ত
৭. “India opens way for Dacca trials”. দি নিউ ইয়র্ক টাইমস, ১৮/০৩/১৯৭২, পৃ- ১
৮. “India to Deliver 150 P.O.W.’s To Bangladesh to Face Trial”, দি নিউ ইয়র্ক টাইমস, ১৫/০৬/১৯৭২, পৃ- ১১
৯. দেখুন এসংক্রান্ত প্রথম আলো খবর এখানে: http://prothom-alo.com/detail/news/53366
১০. পূর্ণাঙ্গ চুক্তিপত্রটি দেখুন http://mea.gov.in/jk/sim-ag.htm
১১. “Pakistan Denies Charge”, দি নিউ ইয়র্ক টাইমস, ১৭/০৪/১৯৭২, পৃ- ৬
১২. “Official Reports 2,000 Bengalis Held in Pakistani Jails”, দি নিউ ইয়র্ক টাইমস, ১৩/১২/১৯৭২, পৃ- ৩
১৩. প্রাগুক্ত
১৪. “Wave of Bengalis fleeing Pakistan”, দি নিউ ইয়র্ক টাইমস, ১২/১১/১৯৭২, পৃ- ১০

Advertisements

Comments are closed.

%d bloggers like this: